পূর্ব শ্রীমঙ্গল গ্রামের বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরি, বাড়ছে গ্রাহক হয়রানি

প্রকাশিত: ৬:৫৭ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৩, ২০২৪

পূর্ব শ্রীমঙ্গল গ্রামের বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরি, বাড়ছে গ্রাহক হয়রানি

নিজস্ব প্রতিবেদক :
মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার ৩নং সদর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের অন্তর্ভূক্ত পূর্ব শ্রীমঙ্গল গ্রামের বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরি হওয়াতে অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়ে আছে গ্রামের একাংশ।

 

গত রোববার (২১ এপ্রিল) রাতে হবিগঞ্জ সড়কের পূর্ব শ্রীমঙ্গল গ্রামের গোরস্তানের পাশে সাংবাদিক এসএম জহুরুল ইসলামের বাসার লাইনের বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে ট্রান্সফরমারটি চুরি হয়।

 

গভীর রাতে হঠাৎ করে বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার পর দিনের বেলায় বিদ্যুৎ না আসায় স্থানীয়রা খোঁজ নিয়ে দেখেন পাশের বাড়ীতে বিদ্যুৎ জ্বলছে । পরে খোঁজা খুঁজি করে দুপুর বেলা দেখতে পান একটি খুঁটিতে থাকা বৈদ্যুতিক খুটিতে ট্রান্সফমার নেই। এতে বাসা বাড়ী অন্ধকারে নিমজ্জিত পানিজ্বলের অভাব, অসহনীয় গরম, অসুস্থ হয়ে পড়ছে লোকজন।

 

দ্রুত ট্রান্সফরমারটি স্থাপন করে বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধানের দাবি জানিয়েছেন এটিএন বাংলা ইউকে এর সিলেট অফিসের স্টাফ রিপোর্টার ও হলি সিলেট পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক মো. জহুরুল ইসলামসহ স্থানীয় বাসিন্দারা।

 

বিষয়টি শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিনয় ভূষণ রায়কে অবগত করা হলে তাঁর নির্দেশে তৎক্ষনাৎ পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এছাড়া শ্রীমঙ্গল পল্লীবিদ্যূতের এজিএম আশরাফ হায়দার, শ্রীমঙ্গল পল্লীবিদ্যূতের পরিচালক এম এ রহিম ও স্থানীয় ওয়ার্ড সদস্য পিয়াস দাসকে বিষয়টি অবগত করা হলে তারা বলেন, বিষয়টি বেশ দুঃখজনক, এনিয়ে পল্লীবিদ্যূতের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে বিহিত ব্যবস্থা গ্রহনের অনুরোধ জানাবো।

 

এছাড়া এজিএম আজরাফ হায়দার লোকজন পাটিয়ে বিষয়টি দেখে সমাধানে ব্যবস্থার আশ্বাস প্রদান করেন।

 

পরিচালক এমএ রহিম বলেন, আমি যথাসাধ্য চেষ্টা করবো ট্রান্সমিটারটি পূণর্স্থাপনের জন্য।

 

এদিকে সাংবাদিক জহুরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ট্রান্সমিটার চুরি এই প্রচন্ড গরমে বিদ্যূৎ গ্রাহকদের চরম বিপাকে ফেলে দিয়েছে। বাসায় অসুস্থ লোকজন নিয়ে যখন বিপদের মধ্যে রয়েছি, ঠিক তখনি চোরের উপদ্রব রাতের আঁধারে ট্রান্সমিটারটি চুরি হয়ে গেছে।

 

বাসার পাশে গোরস্থানে সড়ক জোরে গভীর রাত পর্যন্ত লোকজনের আড্ডা দিতে দেখা যায়। এরআগেও পুলিশ এসব এলাকায় অভিযান চালিয়ে অনেককে আটক করেছে। আশে-পাশে অনেক চিহ্নিত নানান অপরাধী রয়েছে। প্রশাসন একটু সচেতন হলেই ট্রান্সমিটার চোরের সিন্ডিকেট খোঁজে বের করতে সক্ষম হবে।

 

ইদানীং বিভিন্ন সময় ট্রান্সমিটার চুরির ঘটনাও বৃদ্ধি পেয়েছে। স্থানীয় প্রশাসনের শক্ত অবস্থান ট্রন্সমিটার চুর চক্রকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার দাবী জানান। এছাড়া ভাঙ্গারি ব্যবসায়ীদের সংশ্লিষ্টতা আছেকি না তাও তলিয়ে দেখা প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন।

 

(সুরমামেইল/এমজেআই)


সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

রাফি গার্ডেন সুপার হোস্টেল।

 

আমাদের ভিজিটর
Flag Counter

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com