এবার বিদেশি শিক্ষার্থী কমানোর ঘোষণা দিল কানাডা

প্রকাশিত: ১১:৩১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৩, ২০২৪

এবার বিদেশি শিক্ষার্থী কমানোর ঘোষণা দিল কানাডা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
ব্রিটেন ও অস্ট্রেলিয়ার পর এবার আন্তর্জাতিক তথা বিদেশি শিক্ষার্থীদের প্রতি কঠোর হলো কানাডা। গতকাল সোমবার দেশটি জানিয়েছে, আগামী দুই বছর তারা বিদেশি শিক্ষার্থীর সংখ্যা অনেকটাই কমিয়ে ফেলবে। বিশেষ করে, আগামী দুই বছর কানাডায় বিদেশি শিক্ষার্থী প্রবেশের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে কমে আসবে। এর বাইরে, স্নাতকোত্তর পর্যায়ে থাকা শিক্ষার্থীদের ওয়ার্ক পারমিট দেওয়াও বন্ধ করে দেবে দেশটি।

 

কানাডার অভিবাসন মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২৪ সালে কানাডা বিদেশি শিক্ষার্থী নেবে ৩ লাখ ৬০ হাজার। যা আগের বছর অর্থাৎ ২০২৩ সালের তুলনায় অন্তত ৩৫ শতাংশ কম। কানাডায় আবাসন সংকটের কারণে সৃষ্ট অর্থনৈতিক সংকটের মুখে বিদেশি অভিবাসীর সংখ্যা কমাতেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটি।

 

অভিবাসন বিষয়ক মন্ত্রী মার্ক মিলার বলেছেন, ফেডারেল সরকার এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য শিক্ষা ব্যবস্থা তত্ত্বাবধানকারী প্রদেশগুলোর সঙ্গে কাজ করবে। তিনি আরও বলেন, এই সিদ্ধান্তের মূল কারণ হলো—সরকারি ও বেসরকারি অর্থায়নে পরিচালিত বিভিন্ন উচ্চ বেতনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়া শিক্ষার্থীদের রক্ষা করা। এ ছাড়া, আবাসন ও অন্যান্য পরিষেবার ওপর চাপ কমাতেও এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

 

এর আগে, কানাডার সংবাদমাধ্যম সিটিভিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে অভিবাসনমন্ত্রী মার্ক মিলার বলেছিলেন, চলতি বছরের প্রথম ও দ্বিতীয় প্রান্তিকে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের সংখ্যা সীমিত করার কথা বিবেচনা করছে ক্ষমতাসীন লিবারেল সরকার। কানাডায় বিদেশি শিক্ষার্থীদের সংখ্যা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এই বিশাল সংখ্যাটা বিরক্তিকর। এটা এমন একটি অবস্থা, যা সত্যিই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে।’

 

কানাডার সরকারি তথ্য অনুযায়ী, ২০২২ সালে সক্রিয় ভিসাসহ ৮ লাখেরও বেশি বিদেশি শিক্ষার্থী কানাডায় অবস্থান করছিলেন। ২০১২ সালে এই সংখ্যা ছিল ২ লাখ ৭৫ হাজার। বিষয়টি নিয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে গিয়ে মার্ক মিলার বলেন, ‘এই বিশাল সংখ্যাটা বিরক্তিকর। এটা এমন একটি অবস্থা, যা সত্যিই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে।’

 

এর আগে, কানাডা ছাড়াও অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাজ্যও একই ধরনে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অস্ট্রেলিয়া অদক্ষ শ্রমিক ও বিদেশি শিক্ষার্থীদের ভিসা নীতি কঠিন করার ঘোষণা দেয় গত বছরের ডিসেম্বরের শুরুর দিকে। তারও আগে, ব্রিটেন সরকার দেশটির অভিবাসননীতি পরিবর্তনের ঘোষণা দেয়। ব্রিটেন সরকার ঘোষিত সর্বশেষ নীতি অনুসারে, যেসব অভিবাসী এখন থেকে ব্রিটেনে যাবেন, তাঁদের অবশ্যই কোনো না কোনো নির্দিষ্ট দক্ষতা থাকতে হবে।

 

পাশাপাশি ব্রিটেনে যাওয়া অভিবাসীদের জন্য সর্বনিম্ন আয়সীমাও বাড়ানো হয়েছে এক-তৃতীয়াংশ এবং এই পরিমাণ অর্থ আয় করতে হবে নির্দিষ্ট খাতের দক্ষ শ্রমিক হিসেবে। তবে দেশটির বণিক ও শ্রমিক ইউনিয়ন সরকারের এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছে। কারণ, দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত স্বাস্থ্য খাত ও বেসরকারি খাত এখনো ব্যাপকভাবে শ্রমিকহীনতায় ভুগছে।

 

(সুরমামেইল/এমকেএইচ)


সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com